ময়মনসিংহ ২২.৮৫°সে ১৮ই জানুয়ারি, ২০২২

হালুয়াঘাটে ধানের মণ ৪৩ কেজির বিরুদ্ধে ধান্য ব্যবসায়ী সমিতির হুশিয়ারি


ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটের ধান মহলটি প্রাচীনতম ধান মহলের একটি। ঐতিহাসিক এই ধানের বাজারটিকে ঘিরে আছে অনেক গল্প ও স্মৃতিকথা। তবে বিগত কয়েক বছর ধরে ধানের মৌসুমে ধান ক্রয়-বিক্রয়কে কেন্দ্র করে “ধানের মণ ৪৩ কেজিতে” শিরোনামে হয়। আর সেই সাথে রয়েছে ওজনের কারসাজিও। তবে এই অভিযোগের বিরুদ্ধে এবার মাঠে নেমেছে ক্ষুদ হালুয়াঘাট ধান্য ব্যবসায়ী সমিতি।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়, কিছু অসাধু ব্যবসায়ীরা ধান বিক্রয় করতে আসা কৃষকদের ধান মণে ৪০ কেজির বদলে ৪২/৪৩ কেজিতে ক্রয় করেন। অগত্যা বাধ্য হয়েই কৃষক এক মণ ধানের দাম পেতে বাড়তি দুই/তিন কেজি ধান বেশি দিতে বাধ্য হন। এ অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রতি বছর আমন বা বুরো মৌসুমে হালুয়াঘাট উপজেলা প্রশাসন কতৃক ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা এবং অসাধু ব্যবসায়ীদেরকে জরিমানার আওতায় আনা হয়।

জানতে চাইলে হালুয়াঘাট ধান্য ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সভাপতি হুমায়ুন কবীর মানিক বলেন, এক সময় এমনটি হলেও আমাদের কেবিনেট নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে আমরা এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। তারপরও যদি কোন ব্যবসায়ী ওজনে কারসাজি ও ৪২/৪৩ কেজিতে মণ বানিয়ে ধান ক্রয় করে তবে এর দায়-ভার তাকেই নিতে হবে। এছাড়া আমরা সকল ধান্য ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলেছি এবং আজ সারা বাজার ব্যাপী এ বিষয়ে মাইকিং হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. রেজাউল করিম বলেন, কখনোই ৪৩ কেজিতে মণ হতে পারে না। পূর্বেও আমরা এ অনিয়মের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছি এবং বর্তমানেও এ ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে।

আপনার মতামত লিখুন :

 
   
২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত , দৈনিক ময়মনসিংহ প্রতিদিন | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম
close