ময়মনসিংহ ২৮.৩২°সে ১লা ডিসেম্বর, ২০২১

সময়ের বিবর্তনে হারিয়ে যেতে বসেছে খেজুর রস


ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে শীতের সকালে গ্রামে-গ্রামে এমন কি ছোট-বড় বাজারগুলোতে গাছিরা মাটির কলসি ভারে করে খেজুরের রস বিক্রি করতো। সময়ের বিবর্তনে সে চিত্র পাল্টে আজ তা হারিয়ে যেতে বসেছে। এক সময় গ্রামে-গঞ্জের রাস্তাগুলোতে অনেক খেজুর গাছ দেখা গেলেও বর্তমানে উপজেলার প্রায় রাস্তাগুলো খেজুর গাছশূন্য। ফলে হারিয়ে যেতে বসেছে বাংলার ঐতিহ্য সু-স্বাদু খেজুর রস।

শীতকালে খেজুর রসের তৈরি নানা প্রকার পিঠা-পায়েস ছিল হালুয়াঘাটের মানুষের নবান্নের সেরা উপহার। খেজুর রস থেকে তৈরি খেজুরের গুড় দিয়ে ভাপা পিঠা খাওয়ার মজা-ই ছিলো অন্যরকম। এখন খেজুর রস না পাওয়ায় সেই চিরন্তন আনন্দ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন মানুষ। শীতকালে খেজুরের রস থেকে তৈরি ঝুলা গুর ও পাটি খেজুরের গুর পাওয়া গেলেও তা স্বাদে-গন্ধে আর আগের মতো নয়। এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ীরা এতে বিভিন্ন উপকরণের মিশ্রণে এটি যে কত নম্বর করে ফেলেছে তা আর পরখ করার উপায় নেই।

জুগলী ইউনিয়নের নয়াপাড়া গ্রামের গাছি করিম মিয়া বলেন, “গ্রামে এখন খেজুর গাছ নেই বললেই চলে। পুরো গ্রামে যে কয়েকটি গাছ আছে, পরিচর্যার অভাবে সেগুলোতেও ভালো রস আরহণ করতে পারছি না।”

এ বিষয়ে জানতে চাইলে হালুয়াঘাট উপজেলা কৃষি অফিসার মো. মাসুদুর রহমান বলেন, খেজুরের রস ও গুড়ের চাহিদা থাকলেও দিনকে দিন খেজুর গাছ কমে যাচ্ছে। সরকারী পৃষ্ঠ পোষকতায় যেভাবে তাল গাছ লাগানো হচ্ছে আশা করি সেভাবেই যদি খেজুর গাছ লাগানো হতো তাহলে ভোক্তার চাহিদা পরিপূর্ণ হতো বলে আমি মনে করি।

আপনার মতামত লিখুন :

 
   
২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত , দৈনিক ময়মনসিংহ প্রতিদিন | উন্নয়নে হোস্টপিও.কম
close